মোট প্রদর্শন : 77 Views

হাঁস পালনে সফলতা পেয়েছেন মাষ্টার্স পড়ুয়া যুবক মাহবুব আলম

 

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি ঃ শখের বসে হাঁস পালনে সফলতা পেয়েছেন মাষ্টার্স পড়ুয়া যুবক মাহবুব আলম। মাহবুবের খামারে রয়েছে প্রায় ৪০০টি হাঁস। বর্তমানে প্রত্যেকটি হাঁসই ডিম দিচ্ছে। আর এ ডিম বিক্রি করে যে টাকা আয় হয় তা দিয়েই চলে মাহবুবের লেখাপড়াসহ সংসারের ভরপোষন।
উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের নিজ শিববাড়িয়া গ্রামের শাহালম হাওলাদারের দ্বিতীয় পুত্র মাহবুব আলম। বর্তমানে মাহবুব পটুয়াখালী সরকারি কলেজের মাষ্টার্ষে অধ্যয়নরত। নয় মাস আগে অনলাইনে হাঁস পালনের একটি প্রতিবেদন দেখে আগ্রহ জন্মে হাঁস পালনের। চাচাতো ভাই মাসুদ রানার সহযোগিতায় নিজ বাড়ির পুকুর পাড়ে তৈরী করেন হাঁসের খামার। প্রতিবেশীর পরামর্শে প্রথমে রাজশাহী থেকে জিনডিং জাতের ১০০ বাচ্চা হাঁস ২৮০০ টাকায় ক্রয় করে শুরু করেন লালন-পালন। নিয়মিত পরিচর্যায় পাঁচ মাসের মাথায় হাঁসগুলো ডিম দেয়া শুরু করে। মাহবুবের ছোট পরিসরে, রুটিন মাফিক স্বল্প শ্রমে গড়ে তোলা হাঁসের খামার লাভের মুখে থাকায় পরে তিনি একই জাতের আরও ১০০ হাঁসা(পুরুষ) ও ২০০ হাঁসি (মেয়ে)ক্রয় করেন। বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে ২০০ থেকে ২৫০টি ডিম বাজারে বিক্রি করে গড়ে তার আয় হয় ১৫০০ থেকে ২০০০ হাজার টাকা। শখের এ হাঁসের খামার মাহবুবকে করে তোলে স্বাবলম্বী। বদলে যেতে থাকে তার ভাগ্য। নিজের লেখাপড়ার খরচ বহনের পাশাপাশি পরিবারকে দিচ্ছেন আর্থিক সহযোগিতা। মাহবুবের হাঁস পালনের এ সফলতা দেখে স্থানীয় অনেক যুবকই হাঁস পালনে আগ্রহী হচ্ছেন।
মাহবুব আলম জানান, অনলাইনে হাঁস পালন দেখে চাচাতো ভাইয়ের সহযোগিতায় হাঁস পালন শুরু করি। হাঁসের খামার থেকে এভাবে সফল হব ভাবতে পারিনি। তবে কোন ব্যাংক অথবা এনজিও থেকে ঋন নিতে পারলে আরও বড় পরিসরে হাঁসের খামার করব।
মাহবুবের প্রতিবেশী যুবক মো. আল-আমিন জানান, মাহবুব হাঁসের খামার থেকে অভাবনীয় সফলতা অর্জন করেছে। মাহবুবেবর দেখাদেখি আমারও একটি হাঁসের খামার করার ইচ্ছা আছে। মাহবুবের আরেক প্রতিবেশী রুহুল আমিন জানান, মাহবুবের সফলতা দেখে আমি ইতিমধ্যে জিনডিং জাতের ১০০ হাঁসের অর্ডার দিয়েছি।
কলাপাড়া উপজেলা প্রানিসম্পদ কর্মকর্তা ডা: মো: হাবিবুর রহমান জানান, মাহবুব আমাদের সাথে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রেখে পরামর্শ অনুযায়ী হাঁস পালন করছে। সফলতাও অর্জন করছে। মাহবুবের দেখাদেখি উপজেলার অনেক যুবকই হাঁস পালনে আগ্রহী হচ্ছেন। উন্নত জাতের হাঁস পালন করে মাহবুবের মত অনেক যুবকই বেকারত্ব দূর করতে পারেন।