মোট প্রদর্শন : 172 Views

রোহিঙ্গা সংকট অবসানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সোচ্চার হওয়ার আহবান জর্ডানের রানীর

 জর্ডানের রানী রানিয়া আল আবদুল্লাহ মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের দূর্ভোগ নিরসনে ‘কার্যকর, দ্রুত ও নিরপেক্ষভাবে’ সাড়া দেয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।
তিনি বলেন,‘ আমি রোহিঙ্গা মুসলমানদের দূর্ভোগ লাঘবে এবং সহিংসতা বন্ধে যা যা করার দরকার তা করার জন্য জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান জানাচ্ছি,এটা শুধু আমাদের দায়িত্বই নয়। এটা ন্যায় বিচারেরও বিষয়’।
সোমবার কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। এসময় কুতুপালং ক্যাম্পে আইওএম এর অস্থায়ী হাসপাতালে সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেন জর্ডানের রানী।
সংবাদ সম্মেলনে রানী রানিয়া মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা নাগরিকদের আশ্রয় দেয়ার জন্য বাংলাদেশের সরকার ও জনগণের প্রশংসা করে বলেন, ‘বাংলাদেশের একার পক্ষে এ বিশাল বোঝা বহন করা সম্ভব নয়। বিশ্ব সম্প্রদায়কে এ সংকট মোকাবেলায় এগিয়ে আসতে হবে’।
রানিয়া বলেন, ‘আমি এখানে মিয়ানমার থেকে বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের অনেকের সাথেই কথা বলেছি। তাদের কাছ থেকে পরিস্থিতি সম্পর্কে যা শুনেছি তা সত্যিই ভয়াবহ’।
এ প্রথম কোন মুসলিম দেশের একজন রাণী রোহিঙ্গাদের দূরাবস্থা সরেজমিনে দেখলেন।
বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া মিয়ানমারের শরণার্থীদের জন্য জরুরী মানবিক সহায়তা প্রয়োজনের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘এখানে (রোহিঙ্গা ক্যাম্প) ৯৫ ভাগ রোহিঙ্গা মৌলিক চাহিদার সংকটে রয়েছে। এখানে যারা আশ্রয় নিয়েছে তাদের মধ্যে ৬০ ভাগ শিশু। প্রায় ৪ লক্ষ শিশু পুষ্টিহীনতায় ভুগছে’।
রাণী রানিয়া ১৬ সদস্যের প্রতিনিধিদল নিয়ে জর্ডান থেকে বিশেষ বিমানে সরাসরি আজ বেলা ১১টায় কক্সবাজার বিমানবন্দরে পৌঁছান। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বিমানবন্দরে জর্ডানের রাণীকে স্বাগত জানান।
জর্ডানের রানী দুপুর ১২ টায় কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছান। তিনি ক্যাম্পের বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখেন এবং আশ্রয়গ্রহনকারি মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিকদের সাথে কথা বলেন। এসময় রোহিঙ্গারা তাদের উপর মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও সরকারের বর্বর নির্যাতনের কথা তুলে ধরেন।
সফরকালে জর্ডানের রানী আর্ন্তজাতিক উন্নয়ন সংস্থাগুলোর কার্যক্রম পর্যবেক্ষন করেন।
পরিদর্শনকালে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকী, সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল ও আশেক উল্লাহ রফিক, কক্সবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ চৌধুরী সহ জর্ডান দূতাবাস ও আন্তর্জাতিক সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, জর্ডানের রানী ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটির (আইআরসি) একজন বোর্ড সদস্য এবং বিভিন্ন মানবিক সাহায্য সংস্থার পরামর্শক।(বাসস) :